আজ || সোমবার, ২০ মে ২০২৪
শিরোনাম :
  রবীন্দ্র সৃজনকলা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ডিজাইনকৃত পোশাক নিয়ে ফ্যাশন প্রদ‍‍র্শনী       গোপালপুরে দারোগার মাথা ফাটানোর ঘটনায় ১৬ জনকে জেলহাজতে প্রেরণ       গোপালপুরে দারোগার মাথা ফাটিয়েছে সন্ত্রাসীরা; গ্রেফতার ১০       গোপালপুরে প্রধানমন্ত্রীর ফেয়ার প্রাইজের চাল কালোবাজারে বিক্রির অভিযোগ       গোপালপুরে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মোমেনের পদত্যাগ       উত্তর টাঙ্গাইল নূরানী মাদরাসার বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান       গোপালপুরে জাতীয় দুর্যোগ প্রস্তুতি দিবস উদযাপন       গোপালপুরে নানা আয়োজনে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত       গোপালপুরে পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় শিশু ও নারী নিহত       গোপালপুরে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে নগদ অর্থ প্রদান    
 


শিবির নেতা-কর্মী নিহতের ঘটনায় থমথমে বগুড়া

 

যুবলীগ-ছাত্রলীগের হামলায় চার জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মী নিহতের পর বগুড়ায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। শহরজুড়ে টহল দিচ্ছে র্যামব ও পুলিশ। সতর্ক অবস্থায় রয়েয়ে বিজিবি।

শুক্রবার সকালে শহরে স্বাভাবিক দিনের তুলনায় যান চলাচল কম ছিল। প্রয়োজন ছাড়া লোকজন বাসার বাইরে যায়নি।

বৃহস্পতিবার হরতাল চলাকালে দুপুরে যুবলীগ-ছাত্রলীগের হামলায় শিবিরের এক নেতাসহ দুজন নিহত হয়। এরপর সন্ধ্যায় পুলিশের গুলিতে আরও দুই শিবির কর্মী নিহত হয়। এরপর থেকে শহরে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

ওই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে শনিবার বগুড়ায় সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েছে জেলা জামায়াতে ইসলামী। আর ওই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে শহরে আজ যেকোনো সময় বিক্ষোভ পালনের ঘোষণা দিয়েছে দলটি।

এছাড়া, বৃহস্পতিবার নিহতদের একজন মিজানুর রহমানের লাশ এখনও হস্তান্তর করা হয়নি। অন্যদের লাশ হস্তান্তর করা হলেও জানাজা ও দাফনের বিষটি জামায়াত এবং পরিবারের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়নি।

এদিকে, নতুন করে সংঘাত এড়াতে বগুড়া শহরে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি জোরদার করা হয়েছে। শহরের প্রতি পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া র্যােব ও পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে। বিজিবিকে সতর্ক অবস্থায় রাখা হয়েছে।

‘বিতর্কিত ট্রাইব্যুনাল বাতিল করে আটক দলের শীর্ষ নেতাসহ বিরোধী দলের সকল আটক নেতা কর্মীদের মুক্তি, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহাল ও জনদুর্ভোগ লাঘবের দাবি আদায়ে’ বৃহস্পতিবার দেশজুড়ে হরতালের ডাক দেয় জামায়াতে ইসলামী।

বৃহস্পতিবার দুপুরে পিকেটিং করার সময় যুবলীগ-ছাত্রলীগের সশস্ত্র হামলায় শিবির সরকারি আজিজুল হক কলেজের পুরাতন ভবন শাখা শিবির সভাপতি রুহানি নিহত হন। এরপর জামায়াতকর্মী মিজানুরকে তার দোকানে রামদা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে যুবলীগ-ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা।

এরপর সন্ধ্যায় পুলিশের গুলিতে আরও দুই শিবিরকর্মী নিহত হয়। এরা হলেন- শিবিরকর্মী আব্দুল্লাহ ও শরীফ। শিবিরের মেসগুলোতে অভিযানে পুলিশের গুলিতে এরা নিহত হন। এ সময় গুলিবিদ্ধ হন আরো আটজন।

এছাড়া, গতকালের হরতালে সংঘর্ষের ঘটনায় রাতভর অভিযান চালিয়ে ৩২ জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মন্তব্য করুন -


Top
error: Content is protected !!