আজ || বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম :
  গোপালপুরে কোটা বিরোধীদের বিপক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিবাদ       গোপালপুর প্রেসক্লাবে মেধাবী শিক্ষার্থীদের সাথে মতবিনিময়       গোপালপুরে শতাধিক নিষিদ্ধ জাল পুড়িয়ে ধ্বংস       গোপালপুরে বর্নাত্যদের জন্য ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প       গোপালপুরে বন্যায় পানীয় জলের সংকট, তবে ক্ষতিগ্রস্তরা পাচ্ছে পর্যাপ্ত ত্রাণ       গোপালপুরে ভূয়া নামজারি ও জাল খতিয়ান তৈরি চক্রের দুই সদস্য আটক       টাঙ্গাইল জেলা সমিতি ঢাকা’র নবনির্বাচিত সভাপতি ইব্রাহীম, সম্পাদক হিরণ       গোপালপুরে বৃত্তি প্রদান ও পুরস্কার বিতরণ       গোপালপুরে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী পালন       গোপালপুরে ভূমি সেবা সপ্তাহে কুইজ প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ    
 


টাঙ্গাইল -২ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থীর অভিযোগ নৌকার প্রার্থী ও কর্মীরা সংঘাতের মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বিনষ্ট করছে

ডেক্স নিউজ :

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন টাঙ্গাইল-২ (গোপালপুর-ভূঞাপুর) আসনে ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউনুছ ইসলাম তালুকদার অভিযোগ করেন, ভোটাভোটিতে হেরে যাওয়ার ভয়ে নৌকার প্রার্থী ছোট মনির এবং তার কর্মীরা সন্ত্রাসী হামলা, সংঘাত ও নৈরাজ্যকর পরিবেশ তৈরি করছে। গোপনে গাড়িভর্তি অবৈধ অস্ত্রসস্ত্র সরবরাহ করে এবং বহিরাগত সন্ত্রাসীদের ভাড়ায় এনে নির্বাচনী এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করছেন। এমনকি স্বতন্ত্র প্রার্থীর উপর প্রকাশ্যে সন্ত্রাসী কায়দায় হামলা এবং অনবরত প্রাণনাশের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশন ঘোষিত আচরণবিধি তোয়াক্কা না করে সবর্ত্র জবরদস্তি চালিয়ে যাচ্ছেন।

তিনি আজ শুক্রবার সকালে গোপালপুর উপজেলার ঝাওয়াইল বাজারে নিজ অফিস কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন। এ সময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন ঝাওয়াইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. শাহজাহান আলী, সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম তালুকদার, ঝাওয়াইল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান তালুকদার, যুগ্মসম্পাদক এসএম লিটন, ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি ফিরোজ সরকারসহ বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী।

ইউনুছ ইসলাম তালুকদার লিখিত বক্তব্যে জানান, গত ১২ ডিসেম্বর নৌকার কর্মীরা সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে ঈগল প্রতীকের কর্মী আনছার আলীকে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়া হলেও ওসি সাহেব কোন ব্যবস্থা নেননি। গত ১৮ ডিসেম্বর নৌকার কর্মীরা হাদিরা বাজারে অবস্থিত ঈগল প্রতীকের নির্বাচনী অফিসে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। গত ১৯ ডিসেম্বর ভূঞাপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এবং মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুদুল হক মাসুদ এবং গোপালপুর পৌরসভার মেয়র রকিবুল হক ছানাসহ অন্যান্য নেতাকর্মীকে সাথে নিয়ে ভূঞাপুর পৌরশহরের কাঁচাবাজারস্থ দারোগআলী সুপার মার্কেটের ডেল্টালাইফ ইন্সুরেন্স অফিসে মতবিনিময়কালে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রসহ নৌকার ৩০/৪০ কর্মী সেখান হামলা ও ভাংচুর চালায়। একই দিন ভূঞাপুরের গোবিন্দাসী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ইকরাম উদ্দিন মৃধার বাড়ি যাওয়াকালে নৌকার কর্মীরা অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে প্রাণনাশের লক্ষে আমার গাড়িতে দুইদফা হামলা ও ভাংচুর চালায়। তাদের হামলায় ঈগল প্রতীকের কয়েক কর্মী আহত হয়। এ ঘটনায় ভূঞাপুর থানা পুলিশ নৌকার কর্মী নামধারি তিন সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করে। গত ২০ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৭টায় গোপালপুর পৌরশহরের পোস্ট অফিস এলাকা থেকে নৌকার প্রার্থী ছোট মনিরের নির্বাচনী কাজে ব্যবহৃত একটি মাইক্রোবাস আটক করে র্যাব-১৪ এর সদস্যরা। তারা ওই গাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ নৌকার পোস্টার ও দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র উদ্ধার করে। সন্ত্রাসী কাজে ব্যবহারের জন্যই এসব অস্ত্রসস্ত্র আনা হয়েছিল। এ ঘটনায় মাইক্রোচালক মনির ড্রাইভারকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠায়। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন হলে বিপুল ভোটে ঈগলের কাছে নৌকা হেরে যাবে জেনে নানা ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মাধ্যমে এলাকায় ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে নৌকার কর্মীরা। তিনি আরো অভিযোগ করেন, নৌকার প্রার্থী ছোট মনির ও তার কর্মীরা নির্বাচনী আচরণবিধি মানছেননা। প্রতিটি ইউনিয়নে একাধিক নির্বাচনী ক্যাম্প স্থাপন করে নৌকার প্রার্থী আচরণবিধি ভাঙছেন এবং সর্বত্র ঈগল কর্মীসমর্থকদের ভয়ভীতি ও প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছেন। এমতাবস্থায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে প্রতিযোগিতামূলক, অংশগ্রহণপূর্ণ, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন চাচ্ছেন, সেটি নিয়ে ভোটারদের মধ্যে নানা সংশয় দেখা দিয়েছে। এজন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট নৌকার প্রার্থী ছোট মনিরের বিরুদ্ধে সঠিক তদন্ত এবং আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

মন্তব্য করুন -


Top
error: Content is protected !!