আজ || বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম :
  গোপালপুরে কোটা বিরোধীদের বিপক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিবাদ       গোপালপুর প্রেসক্লাবে মেধাবী শিক্ষার্থীদের সাথে মতবিনিময়       গোপালপুরে শতাধিক নিষিদ্ধ জাল পুড়িয়ে ধ্বংস       গোপালপুরে বর্নাত্যদের জন্য ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প       গোপালপুরে বন্যায় পানীয় জলের সংকট, তবে ক্ষতিগ্রস্তরা পাচ্ছে পর্যাপ্ত ত্রাণ       গোপালপুরে ভূয়া নামজারি ও জাল খতিয়ান তৈরি চক্রের দুই সদস্য আটক       টাঙ্গাইল জেলা সমিতি ঢাকা’র নবনির্বাচিত সভাপতি ইব্রাহীম, সম্পাদক হিরণ       গোপালপুরে বৃত্তি প্রদান ও পুরস্কার বিতরণ       গোপালপুরে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী পালন       গোপালপুরে ভূমি সেবা সপ্তাহে কুইজ প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ    
 


কলকাতা শাসন করছে মৌলবাদীরা : তসলিমা নাসরিন

রুশদিকে কলকাতায় আসতে দেওয়া হবে না। খবরটি যখন শুনলাম, সত্যি বলতে কি, আমি অবাক হইনি। অবাক হবো কেন, আমাকেও তো আসতে দেওয়া হয় না, শুধু কলকাতায় নয়,  পুরো পশ্চিমবঙ্গেই আমার পা রাখা নিষেধ। সেই যে ২০০৭ সালে আমাকে তাড়ানো হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ থেকে, আজও আমি নিষিদ্ধ সেই রাজ্যে। শুধু আমার উপস্থিতিই  নয়, আমার বইয়ের উপস্থিতিও নিষিদ্ধ। গত বছর কলকাতা বইমেলায় আমার বই ‘নির্বাসন’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান   বাতিল করে দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। যে মানুষের বাক স্বাধীনতার ওপর পঁচিশ বছর ধরে হামলা হচ্ছে, যাকে দূর্বিষহ নির্বাসন-জীবন  যাপন করতে বাধ্য হতে হচ্ছে, বাংলায় লিখেও বাংলায় যার ঠাঁই নেই, শারীরিক আক্রমণের শিকার হতে হচ্ছে যাকে, সাত-আটটি মাথার-দাম যার মাথার ওপর, সে কেন এক লেখককে কলকাতার সাহিত্যক-বৈঠকে উপস্থিত হতে বাধা দেওয়ায় চমকে উঠবে!
অবাক হইনি, কিন্তু   রুশদিকে কলকাতার অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে না দেওয়া তীব্র প্রতিবাদ করছি।  প্রতিবাদ করেছি মকবুল ফিদা হুসেন,   এ কে রামানুজন, জেমস লেইন, রহিন্তন মিস্ত্রি, কমল হাসান-এর মত প্রকাশের স্বাধীনতার ওপর যখন আঘাত এসেছে। যখনই ধর্মীয় মৌলবাদীরা কোনও কিছুর দাবি করে, সে দাবি যতই অন্যায় দাবি হোক, সরকারের মধ্যে তা-ই মেনে নেওয়ার একটা প্রবল প্রবণতা লক্ষ করেছি। অনেক সময় মৌলবাদীরা অখুশি হতে পারে বা ঝামেলা পাকাতে পারে এই ভয়ে আগ বাড়িয়ে সরকার-পক্ষ থেকে অনেক অযৌক্তিক এবং অগণতান্ত্রিক সিদ্ধান্ত  নেওয়া হয়। আমার ‘দ্বিখণ্ডিত’ বইটি পশ্চিমবঙ্গ সরকার ২০০৩ সালে ‘যদি কিছু হয়’ ভয়ে নিষিদ্ধ করেছিলেন।  রুশদিকে কলকাতায় আসতে বাধা দেওয়ার পেছনে সরকারের ওই ‘যদি কিছু হয়’র ভয়ই কাজ করেছে।
কিন্তু এসব আর কতদিন? আর কতদিন মৌলবাদীদের, বিশেষ করে মুসলিম মৌলবাদীদের ভয়ে সিঁটিয়ে থাকবে সরকার, আর কতদিন ওদের অন্যায় আবদার মাথা নত করে মেনে নেবে? ভারত পৃথিবীর বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশ, ভারত   বাংলাদেশও নয়, পাকিস্তানও নয়, ওসব দেশের   নড়বড়ে নাম কা ওয়াস্তে গণতন্ত্রের মত  ভারতের গণতন্ত্র নয়।    ভারত শিল্পে, শক্তিতে, শিক্ষায়, স্থিতিতে আজ উন্নত দেশের কাতারে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু ভারত কেন নিজেকে   মুসলিম মৌলবাদীদের স্বর্গরাজ্য  হতে দিচ্ছে! হাতে গোণা কিছু মুসলিম মৌলবাদীকে খুশি করার জন্য অথবা ওদের ভয়ে আজ ভারতের  সংবিধানকে (১৯ক ধারা) অপমান করতে দ্বিধা করছেন না, দেশকে হাজার বছর পেছনে ঠেলে দিতে    আপত্তি করছেন না  নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা।  এর ফলে গোটা মুসলিম সম্প্রদায়, আর গোটা ইসলামই যে অসহিষ্ঞু বলে প্রমাণিত হয়ে গেল, তার দায় কে নেবে!  কেবল নির্বাচনে জেতার হিসেব!  দেশ গোল্লায় যাক, দেশের ভবিষ্যৎ গোল্লায় যাক, আমার নির্বাচনে জেতা চাই। প্রগতিবিরোধী, নারীবিরোধী, অর্বাচিন, অগণতান্ত্রিক, অশিক্ষিত, অসুস্থ, অসভ্য  মৌলবাদীদের দাবি মেনে নিয়ে যারা আজ  সভ্য শিক্ষিত প্রগতিশীল শিল্পী সাহিত্যকদের স্বাধীনতা হরণ করছে, মৌলবাদীদের শক্তি এবং সাহস বাড়াচ্ছে, তারা দেশের এবং দশের শত্রু, এ কথা আমি বলতে পারি, জীবনের ঝুঁকি নিয়েই বলতে পারি।
মন্তব্য করুন -


Top
error: Content is protected !!