আজ || শুক্রবার, ১৪ Jun ২০২৪
শিরোনাম :
  গোপালপুরে ভূমি সেবা সপ্তাহে কুইজ প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ       হেমনগরে বর্ধিত সভায় দোয়াত কলম প্রতীকের কর্মী-সমর্থকদের ঢল       রবীন্দ্র সৃজনকলা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ডিজাইনকৃত পোশাক নিয়ে ফ্যাশন প্রদ‍‍র্শনী       গোপালপুরে দারোগার মাথা ফাটানোর ঘটনায় ১৬ জনকে জেলহাজতে প্রেরণ       গোপালপুরে দারোগার মাথা ফাটিয়েছে সন্ত্রাসীরা; গ্রেফতার ১০       গোপালপুরে প্রধানমন্ত্রীর ফেয়ার প্রাইজের চাল কালোবাজারে বিক্রির অভিযোগ       গোপালপুরে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মোমেনের পদত্যাগ       উত্তর টাঙ্গাইল নূরানী মাদরাসার বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান       গোপালপুরে জাতীয় দুর্যোগ প্রস্তুতি দিবস উদযাপন       গোপালপুরে নানা আয়োজনে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত    
 


বঙ্গোপসাগরে ১১ জেলেকে হত্যা

শনিবার রাতে বঙ্গোপসাগরের সোনারচর নামক স্থানে এফবি ইসরাত নামের একটি এসময় ট্রলারে হামলা চালিয়ে ১১ জেলেকে হত্যা করেছে রোহিঙ্গা জলদস্যূরা। তবে এখনও পর্যন্ত এসব জেলের লাশ উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনার পর মিয়ানমারে পালানোর সময় আবদুল হামিদ নামের একজন রোহিঙ্গা জলদস্যুকে আটক করেছে উখিয়ার ইনানী  ফাড়ির পুলিশ। পুলিশ জানিয়েছে, তাদের কাছে দেয়া জবানবন্দিকে হামিদ ১১জেলেকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। এদিকে হত্যার খবরে পাথরঘাটা জেলে পল্লীতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

বরগুনা জেলা জেলে সমিতির সভাপতি আবদুল মান্নান মাঝি জানান, শুক্রবার বিকেলে এফবি ইসরাত ট্রলারটি ১৬জন জেলে নিয়ে বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে যায়। শনিবার রাতে সোনার চর এলাকায় পৌঁছলে ট্রলারেরই পাঁচ রোহিঙ্গা জেলে ঘুমন্ত জেলেদের ওপর হামলা চালায়। মান্নান মাঝি জানান, তার ধারনা রোহিঙ্গারা ট্রলার ও মালামাল লুটের জন্য  এসব জেলেদের হত্যা করেছে।

ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত উপপরিদর্শক (এসআই) সাঈদ মিয়া জানান, হামিদ পুলিশকে জানিয়েছে, মুলত ট্রলারে থাকা পাঁচজন রোহিঙ্গা মূলত জলদস্যু দলের সঙ্গে জড়িত। শনিবার রাতে কিরিচ দিয়ে ১১ জন বাংলাদেশি জেলেকে হত্যা করে লাশ সাগরে ফেলে ট্রলার নিয়ে তাঁরা পালিয়ে যাচ্ছিলেন। ট্রলারে তাঁর সঙ্গে চারজন রোহিঙ্গা জলদুস্য ছিলেন। তাঁরা পালিয়ে গেছেন। পাথরঘাটা থানার ওসি আজম খান ফারুকি বলেন, শনিবার ট্রলারের মালিক সেন্টু খান জিডি করেন। তবে এখনো জেলেদের মৃত্যুর বিষয়ে তাঁদের কাছে নিশ্চিত কোনো খবর নেই।

ট্রলার মালিক সেন্টু খান জানান, শনিবার রাতে হঠাত করে ট্রলারের মাঝি আলমের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ বন্ধ হয়। রোববার কক্সবাজার থেকে মুঠোফোনে জানতে পারেন তার ট্রলারে ডাকাতি হয়েছে এবং মাঝি মাল্লারা নিখোঁজ। এখনও পর্যন্ত এসব জেলের কোন সন্ধান মেলেনি। সেন্টু খান আরও জানান,রোহিঙ্গারা জেলে সেজে ট্রলারে ডাকাতি করার জন্যই সাগরে যায়। পাথরঘাটার জেলেদের ভাগ্যে মুলত কী ঘটেছে তিনি বলতে পারছেন না।
নিখোঁজ জেলেরা হল, বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার বেলাল, সৈয়দ আলম মাঝি, সোহাগ, জাফর, আব্বাস, বাবুল মিস্ত্রী ও কক্সবাজারের জসীম। অপর তিন জেলের নাম এখনও জানা যায়নি

এদিকে ১১ জেলেকে হত্যা করা হয়েছে এমন খবরে স্বজনদের আহাজারিতে পৌর শহরের ৭ নং ওয়ার্ডের জিয়া মাঠ সংলগ্ন এলাকার বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে। রোববার সকালে নিখোঁজ জেলেদের বাড়িতে গিয়েদেখা যায়, জেলে শাহ আলমের স্ত্রী ফরিদা  বগেম বার বার মুর্ছা যাচ্ছিলেন। জেলে সোহাগ  জাফর ও বাবুলের পরিবাওে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। তাদের সবার দাবী, অন্তত স্বামীর মৃতদেহটি হলেও দেখতে চান। একদিকে উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে অসহায়, অপরদিকে প্রিয়জনের লাশ না দেখতে পারার সংশয়ে জেলেদের পরিবারে নেমে এসেছে গভীর শোকের ছায়া।

কক্সবাজার জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বাবুল আখতার মুঠোফোনে জানান, জেলে ও জলদস্যুদের সন্ধানে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে।

মন্তব্য করুন -


Top
error: Content is protected !!