আজ || শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম :
  গোপালপুরে কোটা বিরোধীদের বিপক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিবাদ       গোপালপুর প্রেসক্লাবে মেধাবী শিক্ষার্থীদের সাথে মতবিনিময়       গোপালপুরে শতাধিক নিষিদ্ধ জাল পুড়িয়ে ধ্বংস       গোপালপুরে বর্নাত্যদের জন্য ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প       গোপালপুরে বন্যায় পানীয় জলের সংকট, তবে ক্ষতিগ্রস্তরা পাচ্ছে পর্যাপ্ত ত্রাণ       গোপালপুরে ভূয়া নামজারি ও জাল খতিয়ান তৈরি চক্রের দুই সদস্য আটক       টাঙ্গাইল জেলা সমিতি ঢাকা’র নবনির্বাচিত সভাপতি ইব্রাহীম, সম্পাদক হিরণ       গোপালপুরে বৃত্তি প্রদান ও পুরস্কার বিতরণ       গোপালপুরে বৃক্ষরোপন কর্মসূচী পালন       গোপালপুরে ভূমি সেবা সপ্তাহে কুইজ প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ    
 


দুদকের প্রতিবেদনেই প্রমাণ করে দুর্নীতিতে সরকার জড়িতঃ মির্জা ফখরুল

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, পদ্মা সেতু প্রকল্পের দুর্নীতিতে সরকার জড়িত তা দুর্নীতি দমন কমিশনের অনুসন্ধান কমিটির প্রতিবেদনেই প্রমাণ হয়েছে।

এর দায়ভার নিয়ে এখন নৈতিক কারণে প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারের পদত্যাগ করা উচিৎ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘গণতন্ত্র মুক্তি দিবস’ উপলক্ষে ১৯৯০ এর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ-ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যের উদ্যোগে এক আলোচনা সভায় মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, ‘এতদিন প্রধানমন্ত্রী ও দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান বলে আসছিলেন, পদ্মা সেতুতে কোন দুর্নীতি হয়নি। এখন অনুসন্ধান কমিটির প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে- সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনসহ ১০ জন জড়িত।’

ফখরুল বলেন, ‘কমিশনের চেয়ারম্যান গোলাম রহমান বলেছেন- দুর্নীতির গন্ধ পাওয়া গেছে। ডাল মে কুছ কালা হ্যায়। এই একটি কারণেই এখন প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারের পদত্যাগ করা উচিত।’

সরকারের দুর্নীতি ফাঁস হয়ে গেছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘সৈয়দ আবুল হোসেনকে প্রধানমন্ত্রী দেশপ্রেমিক উপাধি দিয়েছিলেন। আজ তিনি কি বলবেন?’

আবুল হোসেন ও প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা মসিউর রহমানের নাম প্রতিবেদন থেকে বাদ দেয়ার ‘ষড়যন্ত্র’ চলছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত এই মহাসচিব।

তিনি বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি, আজ অনুসন্ধান কমিটির সাথে বিশ্ব ব্যাংকের পর্যবেক্ষক প্রতিনিধি দলের বৈঠক রয়েছে। পত্রিকায় প্রকাশ পেয়েছে- সৈয়দ আবুল হোসেন ও মসিউর রহমানকে বাদ দেয়ার চেষ্টা হচ্ছে। কিন্তু তাতে কাজ হবে না।’

এ সময় মির্জা ফখরুল পদ্মা সেতুর দুর্নীতির সাথে প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্টজনও জড়িত রয়েছে বলে দাবি করেন।

আগামী ৯ ডিসেম্বর সারা দেশে ১৮ দলের অবরোধ কর্মসূচি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আন্দোলন শুরু হয়ে গেছে। দেশের জনগণ আর এই সরকারকে সময় দিতে চায় না।’

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, ওইদিনের কর্মসূচিতে জনগণ সরকারের প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করবে। অবরোধ কর্মসূচিতে বাধা দিলে এর পরিণতি শুভ হবে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমাদের অবরোধ কর্মসূচি হবে সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ। কিন্তু এতে সরকার ইচ্ছাকৃতভাবে উস্কানি দিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করলে তার দায়ভার তাদেরই নিতে হবে।’

জামায়াতের হরতাল প্রসঙ্গ উল্লেখ করে সরকারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, একটি দলের আন্দোলনেই সরকারের যে অবস্থা ১৮ দল ও জনগণের আন্দোলনের মুখে তারা পালানোর পথ পাবে না।

তিনি আরো বলেন, তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থায় নির্বাচন দিলে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা জামানতের টাকা ফেরত পাবে না। তাই তারা অর্ন্তবর্তী সরকারের অধীনে নিবার্চন দিতে চায়।

মির্জা ফখরুল বলেন, দেশ, জাতি সত্যিকার অর্থেই গভীর সংকটের মুখে পড়েছে। সরকার পরিকল্পিতভাবে দেশের গামের্ন্টস শিল্পকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। তাদের ব্যর্থতার কারণেই এ শিল্পের শ্রমিকরা পুড়ে অঙ্গার হয়ে যাচ্ছে।

আলোচনা সভায় তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘১৯৭২-৭৫ সালে এই ইনু সাহেবরা জাসদ সৃষ্টি করে গণবাহিনীর মাধ্যমে আওয়ামী লীগের বিরোধিতা করেছিল। তাদের কথায় হাজার হাজার তরুণ তাজা রক্ত দিয়েছে। আজ ইনু সাহেবরা আওয়ামী লীগের সঙ্গী হয়ে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী খালেদা জিয়াকে রাজনীতি ছেড়ে দেয়ার কথা বলছেন।’

নব্বইয়ের স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের মতো এ সরকারকেও নির্দলীয় সরকারের দাবি মানতে বাধ্য করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

বিরোধীদলীয় নেতা যুদ্ধাপরাধীর বিচার চান না- প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের জবাবে বিএনপি ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, ‘আমরা স্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই- অবশ্যই বিএনপি যুদ্ধাপরাধীর বিচার চায়। তবে সেই বিচার ন্যায় ও স্বচ্ছ হতে হবে। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে বিচারের নামে আমরা কোন প্রহসনের বিচার চাই না।’

মন্তব্য করুন -


Top
error: Content is protected !!