আজ || সোমবার, ২০ মে ২০২৪
শিরোনাম :
  রবীন্দ্র সৃজনকলা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ডিজাইনকৃত পোশাক নিয়ে ফ্যাশন প্রদ‍‍র্শনী       গোপালপুরে দারোগার মাথা ফাটানোর ঘটনায় ১৬ জনকে জেলহাজতে প্রেরণ       গোপালপুরে দারোগার মাথা ফাটিয়েছে সন্ত্রাসীরা; গ্রেফতার ১০       গোপালপুরে প্রধানমন্ত্রীর ফেয়ার প্রাইজের চাল কালোবাজারে বিক্রির অভিযোগ       গোপালপুরে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মোমেনের পদত্যাগ       উত্তর টাঙ্গাইল নূরানী মাদরাসার বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান       গোপালপুরে জাতীয় দুর্যোগ প্রস্তুতি দিবস উদযাপন       গোপালপুরে নানা আয়োজনে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত       গোপালপুরে পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় শিশু ও নারী নিহত       গোপালপুরে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে নগদ অর্থ প্রদান    
 


ফেসবুক-টুইটার ব্যবহারে মানসিক সমস্যা!

ফেসবুক ও টুইটারের সঙ্গে মানসিক সমস্যার নিবিড় সম্পর্ক খুঁজে পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। তারা বলছেন, এসব সামাজিক মাধ্যম মানুষকে মানসিক রোগীতেও পরিণত করতে পারে।

ইসরায়েলের তেল আবিব বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন বিভাগের গবেষকরা তিনজন আক্রান্ত ব্যক্তির উপর গবেষণা চালিয়ে এ তথ্য পান। তারা তিনজনই সম্প্রতি নিকটাত্মীয়দের হারিয়েছিলেন কিংবা বিচ্ছেদে ভুগছিলেন। বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেন, তিনজনই তাদের মানসিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য ইন্টারনেটের আশ্রয় নিচ্ছেন।

গবেষকদলের মুখপাত্র ডা. ইউরি নিজান জানান, যখনই রোগীরা স্বস্তি খুঁজে পাওয়ার জন্য সামাজিক মাধ্যমে যাচ্ছেন, তখনই অন্যান্য সম্পর্ক নিয়ে নেতিভাবক মনোভাব তৈরি হচ্ছে তাদের মধ্যে।

দুর্বল মনের বা নিঃসঙ্গ ব্যক্তিরা অনলাইনে সম্পর্ক গড়ার মাধ্যমে বাস্তবতা থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারেন বলে জানান তিনি, যা হয়েছে এই তিন ব্যক্তির মধ্যে। বাস্তবতা ভুলে থাকার জন্য তারা সম্পূর্ণভাবে প্রযুক্তি নির্ভর হয়ে পড়েন, এমনকি বাস্তজীবনের সব সম্পর্কে বর্জন করেন। ভার্চুয়াল জীবনকেই তারা বাস্তবের মতো আপন করে নেন।

তিনি বলেন, “তিনজন রোগীর মধ্যেই মানসিক রোগের লক্ষণ ছিল, পাশাপাশি কম্পিউটারের মাধ্যমে স্ক্রিনের অন্যপাশে থাকা মানুষটির প্রতি তাদের মোহ তৈরি হচ্ছিল।”

রোগীরা পরবর্তীতে সুস্থ হয়ে উঠলেও সোশ্যাল মিডিয়ার প্রতি অতিরিক্ত এ নির্ভরতা ব্যক্তি আত্মবিশ্বাসে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে বলে মনে করছেন গবেষকরা। এর ফলে যে কোনো ব্যাপারে সান্তনা পাবার জন্য মানুষ ছুটে যাচ্ছে ফেসবুকে। এতে নিজেদের উপর থেকে ধীরে ধীরে আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলছেন অনেকে, যার পরিণাম একসময় ভয়াবহ হতে পারে।

ডা. নিজান বলেন, “বর্তমান মানুষ ইন্টারনেটে কীভাবে আচরণ করে, তা মনোবিজ্ঞানীদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। চিকিতসকদের অবশ্যই সামাজিক মাধ্যমের এই প্রভাবকে বিবেচনায়

মন্তব্য করুন -


Top
error: Content is protected !!